Categories
Uncategorized

৫শ হতদরিদ্র ভাসমান জনসাধারনের মধ্যে মানবিক সহায়তা বিতরন করলেন এমপি শাওন

ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের এমপি আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেছেন, বর্তমান সরকার করোনা পরিস্থিতিতে মোকাবেলায় যথাযথভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সকলকে সরকারের প্রদত্ত নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। এবছর ভোলাতে কিছুদিন আগেও করোনার সনাক্তের হার ছিল প্রায় ৪২ ভাগ। রাজধানী ঢাকার চেয়েও এখন ভোলাতে করোনা সনাক্তের হার অত্যন্ত বেশি। যা আমাদের জন্য অত্যন্ত এলার্মিং। এবছর সারা পৃথিবীতে করোনার অবস্থা ভয়াবহ পরিস্থিতি রুপ নিয়েছে। আমাদেরকে সাবধানে থাকতে হবে। তাই আমাদের সকলকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে এবং প্রয়োজন ছাড়া বাড়ীর বাইরে না আসার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ করেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরকে সঠিক ভাবে সরকারের প্রদত্ত সকল সুযোগ সুবিধা বিশেষ করে সরকারের ত্রান যারা পাওয়ার যোগ্য তাদেরকে বিতরন করতে হবে।

লালমোহন উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ১ মে ২০২১ ইং শনিবার দুপুরে লালমোহন সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্কে- করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ  ৫শ হতদরিদ্র ভাসমান জনসাধারনের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ও কল্যান তহবিল ও নিজস্ব তহবিল হতে মানবিক সহায়তা বিতরনের আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসাবে এসব কথা বলেন এমপি শাওন।

তিনি আরও বলেন  গত বছর ২০২০ সালের মার্চ মাসে প্রথম বাংলাদেশে মহামারী করোনা ভাইরাস পজিটিভ ধরা পড়ে। তখন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমি আমার এলাকায় লালমোহন তজুমদ্দিনে অবস্থান করে লকডাউন সফল করা, করোনা ভাইরাস যেন আমাদের এলাকার  তথা দ্বীপজেলা ভোলার মানুষের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্য আপনাদেরকে সাথে নিয়ে দিন রাত কাজ করেছি। লকডাউনের কারনে অসহায় পরিবারগুলো অনাহারে অর্ধাহরে অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করছিল। তখন আমার ব্যক্তিগত অর্থায়নে এবং সরকারের প্রদত্ত ত্রানসামগ্রী  মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে বিতরন করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দফায় দফায় দিকনির্দেশনা মোতাবেক আমরা কাজ করেছি। আমরা উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, ইউপিসহ পৌরসভার কাউন্সিলরদেরকে সাথে নিয়ে সকলকে সমন্বয় করে কাজ করেছি। সমন্বয়ের কারনে আমরা গত বছর অত্যন্ত সুন্দর ভাবে করোনাকে মোকাবেলা করেছি। যার কারনে আমাদের এলাকায় আমরা লালমোহন তজুমদ্দিনকে করোনায় অত্যন্ত সহনীয় রাখতে পেরেছি। তখন দ্বীপজেলা ভোলায় ও করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত সহনীয় পর্যায়ে ছিল।

এসময় অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লালমোহন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী অফিসার আল-নোমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ফকরুল আলম হাওলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রিমন, পৌরসভা আওয়ামীলীগের আহবায়ক শফিকুল ইসলাম বাদল, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন মেহের প্রমূখ।

Categories
Uncategorized

সরকার সব সময় অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে: সংসদ সদস্য শাওন

IMG

লালমোহন, ভোলা, বাংলাদেশ গ্লোবাল: ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেছেন, গত বছর থেকে করোনা ভাইরাস শুরু হওয়ার পড় থেকে এ পর্যন্ত বর্তমান সরকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসহায় হতদরিদ্র মানুরেষ পাশে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসহায়দের মুখে হাঁসি ফোটানোর জন্য দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। আমাদেরও প্রত্যেককে যার যার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে। তা হলে করোনাভাইরাস মোকাবেলা করা সম্ভব হবে।

তিনি শনিবার (০১ মে) দুপুরে ভোলার লালমোহন উপজেলার সজিব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্ক খেলার মাঠে করোনা ভাইরাসে আক্রন্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ হতদরিদ্র ভাসমান সাড়ে ৬শ জনসাধরনের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ও কল্যান তহবিল ও তার ব্যাক্তিগত অর্থায়নে মানবিক সহায়তা বিতরন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, শেখ হাসিনা থাকতে দেশের একজন মানুষও না খেয়ে কষ্ট পাবে না। যতবড় বিপদই আসুক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসহায়দের পাশে আছে। তিনি করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে প্রত্যেককে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে ঘর থেকে বের না হতে অনুরোধ করেন।

এসময় লালমোহন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গিয়াসউদ্দি আহমেদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল নোমান, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক ফখরুল আলম সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ এর নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

Categories
Uncategorized

করোনায় আক্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে মানবিক সহায়তা বিতরন করলেন এমপি শাওন

ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেছেন, বর্তমান সরকার করোনা পরিস্থিতিতে মোকাবেলায় যথাযথভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সকলকে সরকারের প্রদত্ত নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। এবছর ভোলাতে কিছুদিন আগেও করোনার সনাক্তের হার ছিল প্রায় ৪২ ভাগ। রাজধানী ঢাকার চেয়েও এখন ভোলাতে করোনা সনাক্তের হার অত্যন্ত বেশী।এবছর সারা পৃথিবীতে করোনার অবস্থা ভয়াবহ পরিস্থিতি রুপ নিয়েছে। আমাদেরকে সাবধানে থাকতে হবে। তাই আমাদের সকলকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে এবং প্রয়োজন ছাড়া বাড়ীর বাইরে না আসার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ করেন।
লালমোহন উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ১ মে ২০২১ ইং শনিবার দুপুরে লালমোহন সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্কে- করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ ৫শ হতদরিদ্র ভাসমান জনসাধারনের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ও কল্যান তহবিল ও নিজস্ব তহবিল হতে মানবিক সহায়তা বিতরনের আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসাবে এসব কথা বলেন এমপি শাওন।
তিনি আরও বলেন গত বছর ২০২০ সালের মার্চ মাসে প্রথম বাংলাদেশে মহামারী করোনা ভাইরাস পজিটিভ ধরা পড়ে। তখন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমি আমার এলাকায় টানা দুই মাস লালমোহন তজুমদ্দিনে অবস্থান করে লকডাউন সফল করা, করোনা ভাইরাস যেন আমাদের এলাকার তথা দ্বীপজেলা ভোলার মানুষের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্য আপনাদেরকে সাথে নিয়ে দিন রাত কাজ করেছি। লকডাউনের কারনে অসহায় পরিবারগুলো অনাহারে অর্ধাহরে অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করছিল। তখন আমার ব্যক্তিগত অর্থায়নে এবং সরকারের প্রদত্ত ত্রানসামগ্রী মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে বিতরন করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দফায় দফায় দিকনির্দেশনা মোতাবেক আমরা কাজ করেছি। সমন্বয়ের কারনে আমরা গত বছর অত্যন্ত সুন্দর ভাবে করোনাকে মোকাবেলা করেছি।তখন দ্বীপজেলা ভোলায় ও করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত সহনীয় পর্যায়ে ছিল।
এসময় অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লালমোহন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী অফিসার আল-নোমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ফকরুল আলম হাওলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রিমন, পৌরসভা আওয়ামীলীগের আহবায়ক শফিকুল ইসলাম বাদল, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন মেহের প্রমূখ।

Categories
Uncategorized

লালমোহনে হতদরিদ্র ভাসমান জনসাধারনের মধ্যে ত্রান বিতরন করলেন এমপি শাওন

জাহিদুল ইসলাম দুলাল, লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধিঃ ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের এমপি আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেছেন, বর্তমান সরকার করোনা পরিস্থিতিতে মোকাবেলায় যথাযথভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সকলকে সরকারের প্রদত্ত নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।

এবছর ভোলাতে কিছুদিন আগেও করোনার সনাক্তের হার ছিল প্রায় ৪২ ভাগ। রাজধানী ঢাকার চেয়েও এখন ভোলাতে করোনা সনাক্তের হার অত্যন্ত বেশি। যা আমাদের জন্য অত্যন্ত এলার্মিং। এবছর সারা পৃথিবীতে করোনার অবস্থা ভয়াবহ পরিস্থিতি রুপ নিয়েছে। আমাদেরকে সাবধানে থাকতে হবে। তাই আমাদের সকলকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে এবং প্রয়োজন ছাড়া বাড়ীর বাইরে না আসার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ করেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরকে সঠিক ভাবে সরকারের প্রদত্ত সকল সুযোগ সুবিধা বিশেষ করে সরকারের ত্রান যারা পাওয়ার যোগ্য তাদেরকে বিতরন করতে হবে।

লালমোহন উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ১ মে ২০২১ ইং শনিবার দুপুরে লালমোহন সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্কে- করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ ৫শ হতদরিদ্র ভাসমান জনসাধারনের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ও কল্যান তহবিল ও নিজস্ব তহবিল হতে মানবিক সহায়তা বিতরনের আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসাবে এসব কথা বলেন এমপি শাওন।

তিনি আরও বলেন গত বছর ২০২০ সালের মার্চ মাসে প্রথম বাংলাদেশে মহামারী করোনা ভাইরাস পজিটিভ ধরা পড়ে। তখন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমি আমার এলাকায় লালমোহন তজুমদ্দিনে অবস্থান করে লকডাউন সফল করা, করোনা ভাইরাস যেন আমাদের এলাকার তথা দ্বীপজেলা ভোলার মানুষের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্য আপনাদেরকে সাথে নিয়ে দিন রাত কাজ করেছি। লকডাউনের কারনে অসহায় পরিবারগুলো অনাহারে অর্ধাহরে অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করছিল। তখন আমার ব্যক্তিগত অর্থায়নে এবং সরকারের প্রদত্ত ত্রানসামগ্রী মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে বিতরন করেছি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দফায় দফায় দিকনির্দেশনা মোতাবেক আমরা কাজ করেছি। আমরা উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, ইউপিসহ পৌরসভার কাউন্সিলরদেরকে সাথে নিয়ে সকলকে সমন্বয় করে কাজ করেছি। সমন্বয়ের কারনে আমরা গত বছর অত্যন্ত সুন্দর ভাবে করোনাকে মোকাবেলা করেছি। যার কারনে আমাদের এলাকায় আমরা লালমোহন তজুমদ্দিনকে করোনায় অত্যন্ত সহনীয় রাখতে পেরেছি। তখন দ্বীপজেলা ভোলায় ও করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত সহনীয় পর্যায়ে ছিল।

এসময় অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লালমোহন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী অফিসার আল-নোমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ফকরুল আলম হাওলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রিমন, পৌরসভা আওয়ামীলীগের আহবায়ক শফিকুল ইসলাম বাদল, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন মেহের প্রমূখ।

Categories
Uncategorized

লালমোহনে হতদরিদ্র ভাসমান জনসাধারনের মধ্যে ত্রান বিতরন করলেন এমপি শাওন

ভোলা-৩ (লালমোহন তজুমদ্দিন) আসনের এমপি আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেছেন, বর্তমান সরকার করোনা পরিস্থিতিতে মোকাবেলায় যথাযথভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সকলকে সরকারের প্রদত্ত নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। এবছর ভোলাতে কিছুদিন আগেও করোনার সনাক্তের হার ছিল প্রায় ৪২ ভাগ। রাজধানী ঢাকার চেয়েও এখন ভোলাতে করোনা সনাক্তের হার অত্যন্ত বেশি। যা আমাদের জন্য অত্যন্ত এলার্মিং। এবছর সারা পৃথিবীতে করোনার অবস্থা ভয়াবহ পরিস্থিতি রুপ নিয়েছে। আমাদেরকে সাবধানে থাকতে হবে। তাই আমাদের সকলকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে এবং প্রয়োজন ছাড়া বাড়ীর বাইরে না আসার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ করেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরকে সঠিক ভাবে সরকারের প্রদত্ত সকল সুযোগ সুবিধা বিশেষ করে সরকারের ত্রান যারা পাওয়ার যোগ্য তাদেরকে বিতরন করতে হবে।

লালমোহন উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ১ মে ২০২১ ইং শনিবার দুপুরে লালমোহন সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্কে- করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ  ৫শ হতদরিদ্র ভাসমান জনসাধারনের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ও কল্যান তহবিল ও নিজস্ব তহবিল হতে মানবিক সহায়তা বিতরনের আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসাবে এসব কথা বলেন এমপি শাওন।

তিনি আরও বলেন  গত বছর ২০২০ সালের মার্চ মাসে প্রথম বাংলাদেশে মহামারী করোনা ভাইরাস পজিটিভ ধরা পড়ে। তখন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমি আমার এলাকায় লালমোহন তজুমদ্দিনে অবস্থান করে লকডাউন সফল করা, করোনা ভাইরাস যেন আমাদের এলাকার  তথা দ্বীপজেলা ভোলার মানুষের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্য আপনাদেরকে সাথে নিয়ে দিন রাত কাজ করেছি।

লকডাউনের কারনে অসহায় পরিবারগুলো অনাহারে অর্ধাহরে অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করছিল। তখন আমার ব্যক্তিগত অর্থায়নে এবং সরকারের প্রদত্ত ত্রানসামগ্রী  মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে বিতরন করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দফায় দফায় দিকনির্দেশনা মোতাবেক আমরা কাজ করেছি। আমরা উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, ইউপিসহ পৌরসভার কাউন্সিলরদেরকে সাথে নিয়ে সকলকে সমন্বয় করে কাজ করেছি। সমন্বয়ের কারনে আমরা গত বছর অত্যন্ত সুন্দর ভাবে করোনাকে মোকাবেলা করেছি। যার কারনে আমাদের এলাকায় আমরা লালমোহন তজুমদ্দিনকে করোনায় অত্যন্ত সহনীয় রাখতে পেরেছি। তখন দ্বীপজেলা ভোলায় ও করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত সহনীয় পর্যায়ে ছিল।

এ সময় অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লালমোহন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী অফিসার আল-নোমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ফকরুল আলম হাওলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রিমন, পৌরসভা আওয়ামীলীগের আহবায়ক শফিকুল ইসলাম বাদল, পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন মেহের প্রমূখ।

Categories
Uncategorized

লালমোহনে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা পেলো ৬ শতাধিক পরিবার

ভোলার লালমোহনে করোনা ভাইরাসে কর্মহীন ও হতদরিদ্র ৬ শত ৩৮ পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলের ‘মানবিক সহায়তা’ বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে লালমোহন উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্কে অসহায় পরিবারের হাতে এ সহায়তা তুলে দেন ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন।
এসময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় দেশের সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার যেকোনো দুর্যোগে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, ইউএনও আল-নোমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফখরুল আলম হাওলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রিমন, পৌরসভা আওয়ামী লীগের আহবায়ক শফিকুল ইসলাম বাদল প্রমুখ।
Categories
Uncategorized

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কর্মের মূল্যায়ন জনগনের এমপি শাওনের ফেবু স্টাটাস মূহুর্তে ভাইরাল

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কর্মের মূল্যায়ন জনগনের এমপি শাওনের ফেবু স্টাটাস মূহুর্তে ভাইরাল

 ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের এমপি হিসেবে এগারো থেকে সাফল্যের বারো বছরে পর্দাপণের ফেসবুক স্টার্টার্স মুহুর্তেই ভাইরাল হওয়ায় প্রিয় পাঠকের জন্য তা হুবহু তুলে ধরা হলো।

উন্নয়ন, শান্তি ও সমৃদ্ধির ১২ বছরে পদার্পণ:

আমার নির্বাচনী এলাকা লালমোহন-তজুমদ্দিনে দীর্ঘ ১ যুগ সময় পার করার কাজটি আমার কাছে মোটেই সহজসাধ্য ছিলো না। বন্ধুর এই পথটি অতিক্রম করতে আমাকে বহু শ্রম দিতে হয়েছে। সেখানে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় আমার মৃত্যুর চরম ঝুঁকিতো ছিলোই। মেজর হাফিজের দীর্ঘ ২৩ বছরের অপশাসনে লালমোহন-তজুমদ্দিন উপজেলা দুটি ছিল একটা মৃত্যুপুরী। এই ভদ্রলোকের দু:শাসন জার্মানির হিটলারকেও হার মানিয়েছে। ২০১০ সালের ২৪ এপ্রিল অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ একটি উপনির্বাচনের মধ্য দিয়ে আমার পথচলা শুরু। অন্ধকারে নিমজ্জিত একটি অঞ্চলকে শান্তির সুবাতাস দিয়ে ঢেলে সাজানোর কাজটা কলম্বাসের আমেরিকা আবিষ্কার করার মতোই! রীতা-রানী-শেফালীদের সম্ভ্রম হানী, দিনদুপুরে অন্ধ মালেকের চক্ষু উৎপাটন করা, আওয়ামী কর্মীদের গুলি করে মেরে ফেলা, বসতঘরসহ জমিজমা দখল করা, পাঠশালার মেয়েদের দিনদুপুরে তুলে নিয়ে যাওয়া, পুকুরের মাছ ধরে নিয়ে যাওয়া, স্কুল-কলেজে সন্ত্রাস লেলিয়ে দিয়ে শিক্ষাঙ্গনের পরিবেশ ধ্বংস করাসহ বিভিন্ন অপকর্মে লিপ্ত ছিলেন বিএনপি-জামাতের সন্ত্রাসীরা।
সেই ধ্বংসস্তুপ থেকে আমি শুরু করি। দীর্ঘ এগারোটি বছর কঠোর পরিশ্রমের বিনিময়ে আজকের লালমোহন-তজুমদ্দিন। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নিজের শরীরকে বিছানায় লাগাই নাই। নিজের আরাম কে বিসর্জন দিয়ে রানারের মতো ছুটছি সাধারণ মানুষের কল্যানে। মানুষের কল্যানে কাজ করতে গিয়ে কত শত বেলা উপোস ছিলাম সেটা আপনারাই ভাল জানেন। নিজের আরাম-আয়েশ-সুখকে কখনোই প্রাধান্য দেই নাই। আমি বিশ্বাস করি জনগনের সুখ-ই আমার সুখ। শরীরে প্রচন্ড জ্বর নিয়েও আপনাদের খেদমতে লিপ্ত ছিলাম। নিজের শরীরের কষ্ট কখনো মনকে বুঝতে দেই না। এভাবেই দীর্ঘ বছরগুলো আপনাদের সাথে কাটিয়ে দিয়েছি। তৎকালীন লালমোহন-তজুমদ্দিনে ভাল কোন পাকা রাস্তা ছিলো না। আজ উক্ত অঞ্চলে কাঁচা রাস্তা নেই বললেই চলে। একটি অঞ্চলের উন্নয়নের পূর্বশর্ত হলো বিদ্যুৎ। আজ বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত প্রতিটি ঘর। সর্বনাশা মেঘনা ও তেঁতুলিয়ার কড়াল গ্রাসে প্রতিবছর আমার নির্বাচনী এলাকা লালমোহন-তজুমদ্দিনের শত শত একর ফসল জমি ও বসতঘর নদীর অতল গর্ভে হারিয়ে যেতো। সেখানে আমি হাজার কোটি টাকার উপরে বরাদ্দ এনে নদীভাঙ্গন রোদ করিয়েছি। মেঘনার জলদস্যুর কথা কমবেশি সবার জানা আছে। এদের অত্যাচারে মানুষ ঘর থেকে নদীতে মাছ ধরতে সাহস পেত না। যদিও সাহস করে যেতেন, তার ঘরে আসার নিশ্চয়তা ছিলো না। এহেন অবস্থায় জেলেদের সুবিধার্থে আমি স্পীডবোর্ড প্রদান করি। যেগুলো দিয়ে জেলেদের সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রাখা হয়।
চরজহির উদ্দিন ও চরমোজাম্মেল এর মত বিস্তীর্ণ ও দূর্গম এলাকার মানুষ এমপি কি জিনিস সেটাই চোখে দেখে নাই। আমি প্রতিবছর উক্ত দুটি এলাকায় গিয়ে সাধারণ মানুষের একান্তে কাছে গিয়ে তাদের সমস্যাগুলোর সমাধান করে দেই। উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে এই দুটি অঞ্চল আজ কোন অংশেই পিছিয়ে নেই। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কে ঢেলে সাজানোর পাশাপাশি নতুন একাডেমিক ভবন করে দিয়েছি। লালমোহন উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, থানা ভবন কমপ্লেক্সে, মুক্তিযোদ্ধা ভবন কমপ্লেক্স, বড় বড় কয়েকটি ব্রীজ, নতুন ৩টি কলেজ ও ৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ আধুনিক একাডেমিক ভবন প্রদান, লালমোহন সরকারী হাসপাতাল কে ৫১ শয্যায় উন্নীতকরণ ও তজুমদ্দিন সরকারী হাসপাতালকে আধুনিক ভবনে রুপান্তর করেছি। তজুমদ্দিনের থানা ভবন কমপ্লেক্স, মুক্তিযোদ্ধা ভবন কমপ্লেক্স সহ সরকারী-বেসরকারী প্রতিটি স্থাপনা আজ দেখতে নয়াভিরাম দৃশ্যের মতো। এই প্রথম বাংলাদেশে আমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্রের নামে “লালমোহন সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্ক” তৈরী করেছি। সেখানে দুর-দুরান্ত থেকে দৈনিক হাজার হাজার লোক সেই পার্কে ঘুরতে আসে। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি এই পার্কটি উদ্বোধন কালে বলছিলেন, এখানে আসলেই মনে হয় যেন ইউরোপের কোন একটি এলাকায় এসেছি। তিল তিল করে গড়া লালমোহন ও তজুমদ্দিন আজ উন্নয়ন, শান্তি ও অগ্রগতির এক মাইলফলক। কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবে যেখানে মানুষ ঘর থেকে বের হওয়ার সাহস করে না সেখানে রেকর্ড দীর্ঘ তিনমাস একটানা নিজ নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করে গৃহবন্ধি প্রতিটি পরিবারের মাঝে নিজ হাতে খাবার সব বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজীয় চাহিদা তুলে দিয়েছি। তাদের কখনো কষ্ট বুঝতে দেইনি। আমার ভালবাসার শেষ আশ্রয়স্থল, গণতন্ত্রের মানসকন্যা, জননেত্রী শেখ হাসিনা কে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি আমার জীবনের চরম মূল্য দিয়ে হলেও নির্বাচনী এলাকার যে কোন মানুষের বিপদে-আপদে পাশে থাকব। বৃদ্ধ বাবা-মা ও স্ত্রী-সন্তানদের রাজধানী ঢাকায় রেখে প্রতিটি ঈদে আপনাদের সাথে থেকে সুখ-দু:খ ভাগাভাগি করে নিয়েছি। আপনাদের সবার সাথে একত্রে বসে ঈদের কুশল বিনিময় শেষে খাবার খেয়েছি। প্রতিটি ঈদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সকল ত্যাগী ও প্রবীণ নেতাদের বাসায় গিয়ে তাদের খোঁজখবর নিয়েছি। যতটুকু সম্ভব তাদের আর্থিক সহযোগীতা করেছি। নিজস্ব অর্থায়নে অনেক নেতাদের পাকা বাড়ি করে দিয়েছি। অনেকের সন্তানদের সরকারী চাকুরীসহ স্কুল-কলেজে চাকুরীর ব্যবস্থা করেছি। আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ লালমোহন উপজেলা শাখার সভাপতি সর্বোপরি স্থানীয় সাংসদ হিসেবে এই প্রবীণ ও ত্যাগী নেতাদের ভালোমন্দ দেখাশুনার দায়িত্ব আমার উপরই বর্তায়। নিজ খরচে অগনিত লোকদের আমি চিকিৎসা করিয়েছি। রাজধানীর নামকরা ইউনাইটেড হাসপাতালসহ ভারত-সিঙ্গাপুর নিয়েও আমি নেতাকর্মীদের চিকিৎসা করিয়েছি। সাধারণ কর্মীদের নিজ খরচে হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা নিয়ে তাৎক্ষণিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করিয়েছি। চিকিৎসা বা আর্থিক অনুদানের ক্ষেত্রে আমি কখনো দলকে প্রাধান্য দেইনি। সর্বশ্রেণীর লোক এই দুটি সুবিধা আমার কাছে পেত।
আজ পূর্বের ন্যায় কোথাও অনাচার-অবিচার হচ্ছে না। আমি শুরু থেকেই জানিয়ে দিয়েছি আমার নির্বাচনী এলাকা লালমোহন-তজুমদ্দিনে সন্ত্রাসীদের অভয়ারন্য হতে পারে না। আমি স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছি অন্যায়কারী যেই হোক না কেন কোন ছাড় নয়। হোক সে আমার বংশের কেউ। অন্যায়-অত্যাচারীর বিরুদ্ধে আমি সবসময়ের জন্য জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছি। লালমোহন-তজুমদ্দিনের মানুষ আজ মহাখুশি। প্রতিটি সেক্টরে শান্তি ও সমৃদ্ধির সুবাতাস বইছে।
এই শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য আমার একার অবদান নয়। সকল কিছুই দেশরত্ন, জননেত্রী শেখ হাসিনার অবদান। কারন, তিনি আমাকে উক্ত অঞ্চলে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ দিয়েছেন বলেই আমি আপনাদের খেদমত করার সুযোগ পেয়েছি।
যতদিন বেঁচে থাকব ততদিন লালমোহন ও তজুমদ্দিনবাসীর উন্নয়ন, শান্তি ও অগ্রগতির জন্য কাজ করে যাব ইনসাল্লাহ।
জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু

Categories
Uncategorized

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ সম্মান দিয়েছে- এমপি শাওন

ভোর ৬:৩০ মিনিটে লালমোহন থানার মোড়ে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলকে প্রথমে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন। এরপর উপজেলা পরিষদ, লালমোহন পুলিশ, আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনসহ, লালমোহন প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পন করা হয়।

সকাল ৭ টায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ফলকে পুস্পমাল্য অর্পন করেন এমপি শাওন। সকাল ৯টায় লালমোহন সরকারী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন এমপি শাওন, পতাকা উত্তোলন শেষে বাংলাদেশ পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, আনসার ও ভিডিপি, বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রী, স্কাউট ও গার্লস গাইডগণ কুচকাওয়াজ ও শরীরচর্চা প্রদর্শন করেন।

এরপর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে লালমোহন উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিযত হয়। লালমোহন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল নোমানের সভাপতিত্বে, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ নুরনবীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে আজ তার ৫০ বছর হল। এটি স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। এ উপলক্ষে লালমোহনে জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তান ৭১ এর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দিতে পেরে আমরা গর্বিত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ সম্মান দিয়েছেন। শেখ হাসিনা সরকারের আমলে মুক্তিযোদ্ধারা যথযথ সম্মান নিয়ে দেশে বসবাস করছে।

তিনি আরও বলেন বিএনপি স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকারদের বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত করেছিল। রাজাকারদের গাড়ীতে পতাকা দিয়েছিল। বিএনপি কখনও প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান করেনি। ৭৫ এর ১৫ আগষ্টের পর বিএনপি রাজাকারদের মুক্তিযোদ্ধার সাটিফিকেট দিয়েছিল। আলোচনা সভা শেষে পুরস্কার বিতরন করা হয়। এরপর লালমোহন সরকারী শাহবাজপুর কলেজে বঙ্গবন্ধু কর্নারের উদ্ধোধন করেন এমপি শাওন। বেলা ১টায় মরকাজুল উলুম হাজী নুরুল ইসলাম চৌধুরী ক্বওমী মাদ্রাসা ও এতিমখানায় কোরআন তেলোয়াত এবং জুমার নামাজের পর বিশেষ দোয়া মোনাজাত ও এতিমখানায় দুপুরের খাবার বিতরন করেন এমপি শাওন।
এ সময় অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লালমোহন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রিমন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাছুমা বেগম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রাসেলুর রহমান, লালমোহন থানার অফিসার ইনচার্জ মাকসুদুর রহমান মুরাদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ফকরুল আলম হাওলাদার, পৌরসভা যুবলীগের আহবায়ক শফিকুল ইসলাম বাদল প্রমূখ।

Categories
Uncategorized

সাংবাদিকদের বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করতে হবে- এমপি শাওন

ভোলার লালমোহন উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করলেন ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন। ২৩ মার্চ রাত ৮টায় লালমোহন প্রেসক্লাবের নিজস্ব কার্যালয়ে, প্রেসক্লাবের সভাপতি আবদুস সাত্তারের সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক জসিম জনির সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় এমপি শাওন বলেন, সাংবাদিকদের বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করতে হবে। প্রকৃত সাংবাদিকগণের কারনে তৃনমূল পর্যায়ের অন্যায় ও অপরাধচিত্র ফুটে উঠে। তিনি সকলকে হলুদ সাংবাদিকতা থেকে দুরে থাকার পরামর্শ দেন। কালোকে কালো বলা এবং সাদাকে সাদা বলার সাহসিকতা সকল সাংবাদিকদের থাকতে হবে। বর্তমান সরকারের আমলে সাংবাদিকগণ সবচেয়ে বেশি নিরপেক্ষভাবে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে। শুধু অপরাধ নয় সকল উন্নয়নের সংবাদগুলো গুরুত্বসহকারে মিডিয়ায় প্রকাশ করার জন্য পরামর্শ প্রদান করেন এমপি শাওন। এ সময় লালমোহন প্রেসক্লাবের সকল সদস্যসহ লালমোহন উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।

Categories
Uncategorized

লালমোহনে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করলেন এমপি শাওন

ভোলার লালমোহন উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করলেন ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন। ২৩ মার্চ রাত ৮টায় লালমোহন প্রেসক্লাবের নিজস্ব কার্যালয়ে, প্রেসক্লাবের সভাপতি আবদুস সাত্তারের সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক জসিম জনির সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় এমপি শাওন বলেন, সাংবাদিকদের বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করতে হবে। প্রকৃত সাংবাদিকগণের কারনে তৃনমূল পর্যায়ের অন্যায় ও অপরাধচিত্র ফুটে উঠে। তিনি সকলকে হলুদ সাংবাদিকতা থেকে দুরে থাকার পরামর্শ দেন। কালোকে কালো বলা এবং সাদাকে সাদা বলার সাহসিকতা সকল সাংবাদিকদের থাকতে হবে। বর্তমান সরকারের আমলে সাংবাদিকগণ সবচেয়ে বেশি নিরপেক্ষভাবে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে। শুধু অপরাধ নয় সকল উন্নয়নের সংবাদগুলো গুরুত্বসহকারে মিডিয়ায় প্রকাশ করার জন্য পরামর্শ প্রদান করেন এমপি শাওন। এ সময় লালমোহন প্রেসক্লাবের সকল সদস্যসহ লালমোহন উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।